চট্টগ্রাম, রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২ , ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে অবৈধভাবে ধান ও চাল মজুদ করায় ২ লাখ টাকা জরিমানা

প্রকাশ: ৩ জুন, ২০২২ ৯:৩৯ : পূর্বাহ্ণ

মোঃ জাহিদ হাসান মিলু, জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও: অবৈধভাবে ধান ও চাল মজুদ করার দায়ে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ২টি অটোরাইস মিলের স্বত্বাধিকারীকে ও দুই ব্যবসায়ীকে মোট ২ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটগন।
বৃহস্পতিবার (০২ জুন) বিকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট তাসনীম জাহান।
এসময় সদর উপজেলার ছিট চিলারং এর মাছরাঙ্গা অটোরাইস মিলের স্বত্বাধিকারীকে ১ লাখ টাকা ও আকচা’র এসএ অটোরাইস মিলের স্বত্বাধিকারীকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট তাসনীম জাহান জানান, ‘মাছরাঙ্গা অটোরাইস মিলের স্বত্বাধিকারীকে মিলের লাইসেন্সের শর্ত পরিপূরণ না করায় জরিমানা করা হয় এবং এসএ অটোরাইস অবৈধভাবে আমন ধান ৫ মাস ৩ দিন ধরে মজুদ করে রাখার অপরাধের জন্য জরিমানা করা হয়।,

অন্যদিকে বুধবার (০১ জুন) দুপুরে সদর উপজেলার ভূল্লীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুল ইসলাম।

এসময় শাহজাহান নামে এক ব্যবসায়ীকে ২০ হাজার টাকা ও খায়রুল ইসলাম নামে আরেক জন ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। দুই দিনে ২টি অটোরাইস মিলের স্বত্বাধিকারীকে ও ২ জন ব্যবসায়ীকে মোট ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুল ইসলাম বলেন, ‘আইনত সাধারণ খুচরা ব্যবসায়ীরা ধান ও চাল সর্বোচ্চ ১৫ মেট্রিকটন এবং গম ১০ মেট্রিকটন মজুদ করে সর্বোচ্চ ১৫ দিন সংরক্ষণ করতে পারবে। পাইকারি ব্যবসায়ীরা ধান ও চাল সর্বোচ্চ ৩০০ মেট্রিকটন এবং গম ২০০ মেট্রিকটন মজুদ করে সর্বোচ্চ ৩০ দিন সংরক্ষণ করতে পারবে। এছাড়াও খাদ্য অধিদপ্তর থেকে প্রদানকৃত নিয়ম অনুযায়ী রাইসমিল গুলো ১৫ দিনের ধান ছাটাই ক্ষমতার ৩ গুন মজুদ করে সর্বোচ্চ ৩০ দিন এবং চাল ছাটাই ক্ষমতার দুই গুন মজুদ করে সর্বোচ্চ ১৫ দিন সংরক্ষণ করতে পারবেন।,

অবৈধ মজুদকারীদের বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান।

Print Friendly and PDF