জেলার রামগড় পৌরসভা ও সদর ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকায় থামছেনা ডাকাতির আতংক। ডাকাতের ভয়ে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বিনীদ্র রাত কাটাচ্ছেন। সপ্তাহব্যাপি কয়েকটি বাড়িতে ডাকাতি ও ডাকাতি চেষ্টার ঘটনার কোন কুল কিনারা না হওয়ায় প্রশাসনের প্রতি সাধারণ মানুষের বিশ^াসের ভিত নড়ে যাচ্ছে। রাতভর গ্রামবাসির পাহারা ও পুলিশের অতিরিক্ত টহলের সত্তেও গ্রামে গ্রামে ডাকাত আতংক বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে। প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দর যৌথ তৎপরতারই এ ঘটনার সফল সমাপ্তি হবে মনে করছেন সচেতন মহল। তাঁদের প্রশ্ন এসব কি ডাকাতি নাকি বিশেষ কোন মহলের উদ্দেশ্য বাস্থবায়নের চেষ্টা?। গত ৬ অক্টোবর লামকুপাড়া একটি বাড়িতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে জনগণ ধাওয়া করে এসময় একটি মোবাইল পাওয়া যায়। এটি বর্তমানের পুলিশের হাতে জব্দ রয়েছে। পুলিশ বলছে উদ্ধারকৃত মোবাইলের সূত্রধরে ঘটনার গভীরে যাওয়ার চেষ্টা চলছে।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে গতকাল ৭ অক্টোবর পর্যন্ত পৌরসভার সদুকার্বারীপাড়া, হাজিপাড়া, ফেনীরকুল, সদর ইউনিয়নের বলিপাড়া, লামকুপাড়া ও নোয়াপাড়া এলাকায় ৩টি বাড়িতে ডাকাতি ও ৭টি বাড়িতে ডাকাতি চেষ্টার ঘটনা ঘটে। দেশিয় অস্ত্র সজ্জিত ডাকাতদল অন্ত্রের মুখে ও শিশু সন্তানদের জিম্মি করে নগদ টাকা স্বার্ণালংকার লুট করে নিচ্ছে। তাছাড়া একটি বাড়িতে অশ্লিলতাহানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রামগড়ে থামছেনা ডাকাতের আতংক; ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসীর রাত জেগে পাহারা

  আরো সংবাদ