চট্টগ্রাম, শনিবার, ২১ মে ২০২২ , ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রোজার মাসে যত প্রকার খেজুর পাওয়া যায় বাজারে

প্রকাশ: ৪ এপ্রিল, ২০২২ ৭:০৬ : পূর্বাহ্ণ


পবিত্র রমজান মাস শুরু হয়েছে। এ মাসে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা রোজা রেখে ইবাদত করে থাকেন। রমজানে সাহরিতে খাওয়ার পর সারাদিন না খেয়ে থাকতে হয়। এরপর সন্ধ্যায় মাগরিবের মুহূর্তে ইফতার করে রোজা খুলতে হয়। তবে এই সাহরি ও ইফতারে খাবারের আয়োজনে খেজুর কিন্তু অবশ্যই থাকে।

বছরজুড়ে বাজারে খেজুর পাওয়া গেলেও ব্যবসায়ীদের মতে রমজানে এর চাহিদা বহুগুণ বেড়ে যায়। এ জন্য এই সময় মানুষের চাহিদা অনুযায়ী বিপুল পরিমাণ খেজুর আমদানি করে থাকেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, রমজান মাসে অন্যান্য সময়ের থেকে দশগুণ বেশি বিক্রি হয়ে থাকে খেজুর। শবে বরাতের পর থেকে পাঁচ রোজা পর্যন্ত খেজুরের চাহিদা বেশি থাকবে। তারপর ধীরে ধীরে কমতে থাকবে এই চাহিদা। আর রোজার শেষ দিকে একদম কমে যাবে এই চাহিদা। বিক্রেতারা বলছেন, বর্তমানে একশরও বেশি ধরনের খেজুর পাওয়া যায় বাজারে। এক ব্যবসায়ী জানান, মাবরুম, মরিয়ম, সুকারি, সুগাই, আম্বার, আজওয়া ধরনের খেজুর রয়েছে। এর মধ্যে আজওয়া ও মাবরুমই অনেক ধরনের রয়েছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে সবচেয়ে বেশি চাহিদা মাবরুম ও আজওয়া ধরনের খেজুরের। মাশরুক-কালমিও বেশি চলছে। এসব খেজুর সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে রয়েছে।
এছাড়া ম্যাকজুয়েল যেটা রয়েছে তার দাম বেশি। সেটা হয়তো সাধারণ মানুষ কিনতে পারে না। এগুলোর দাম পাঁচ হাজার, সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা। পাঁচ কেজির কার্টুন এসব।

এসব খেজুর মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশ থেকে আমদানি করা হয়। দুবাই, সৌদি আরব, ইরাক, ইরান, তিউনিসিয়া ও আলজেরিয়া এলাকা থেকে বেশি আসে। মিসর থেকেও আসে। মিসরের খেজুরেরও চাহিদা রয়েছে। এছাড়া এ বছর গত কয়েক বছরের তুলনায় দাম কম বলেও জানান ব্যবসায়ীরা।

Print Friendly and PDF