কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাধের স্পিলওয়ের সব কয়টি গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। বাধের ১৬টি গেট থেকে প্রতি সেকেন্ডে ১৮ হাজার কিউসেক পানি ছাড়া হচ্ছে।

কাপ্তাই পানি বিদ্যুত কেন্দ্রের কন্ট্রোল রুম সূত্রের বরাত দিয়ে বাসসের এক খবরে বলা হয়েছে, কাপ্তাই লেকের সর্বোচ্চ পানির ধারণ ক্ষমতা ১০৯ (এমএসএল)। বর্তমানে ১০৮ দশমিক ৬৫ এমএসএল হওয়ায় লেকের পানি বিপদসীমা অতিক্রম করার উপক্রম হওয়ায় কাপ্তাই বাঁধের সকল গেট ১ ফুট করে খুলে দেওয়া হয়েছে।

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক শফি উদ্দিন বাসসকে বলেন, লেকে পানি বৃদ্ধির ফলে কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪টি ইউনিট ১৭০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছে।

উল্লেখ, গত তিন মাসের ব্যবধানে দ্বিতীয়বারের মতো এই বাধের গোট খুলে দেওয়া হলো। এর আগে গত ১৮ জুন টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট প্রাকৃতিক দুর্যোগে কাপ্তাই লেকের পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেলে কাপ্তাই পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাধ হুমকির মুখে পড়ে। সম্ভাব্য বিপদ এড়াতে তখন কাপ্তাই বাধের ১৬টি স্পিলওয়ে আধা ফুট করে খুলে দিয়ে দেওয়া হয়। প্রতি সেকেন্ডে ৯ হাজার কিউসেক পানি কর্ণফুলী নদীতে গিয়ে পড়ে। এর ফলে কর্ণফুলী নদীতে তীব্র স্রোতধারা সৃষ্টির পাশাপাশি কর্ণফুলী নদীর ভাটি অঞ্চল কাপ্তাই, রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, বোয়ালখালী এবং হাটহাজারী উপজেলার বিভিন্ন নিম্মএলাকা প্লাবিত হয়।

খুলে দেওয়া হয়েছে কাপ্তাই বাঁধের সব গেট