টেকনাফ থানার ওসি মাইনুদ্দিন খান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, রোববার রাতে নাফ নদীর গোলারচর পয়েন্টে ওই দুর্ঘটনার পর দুইজনের লাশ পেয়েছিলেন তারা।

সোমবার সকালে আবারও তল্লাশি শুরুর পর নাফ নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে আরও নয়টি লাশ পাওয়া যায়।

নিহত ১২ জনের মধ্যে  একজন পুরুষ ও একজন নারী; বাকিরা সবাই শিশু। এখনও জনা বিশেক মানুষ নিখোঁজ রয়েছে বলে উদ্ধার পাওয়া রোহিঙ্গাদের বরাতে জানিয়েছেন ওসি।

টেকনাফ থানার ওসি মাইনুদ্দিন খান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, রোববার রাতে নাফ নদীর গোলারচর পয়েন্টে ওই দুর্ঘটনার পর দুইজনের লাশ পেয়েছিলেন তারা।

সোমবার সকালে আবারও তল্লাশি শুরুর পর নাফ নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে আরও নয়টি লাশ পাওয়া যায়।

নিহত ১২ জনের মধ্যে  একজন পুরুষ ও একজন নারী; বাকিরা সবাই শিশু। এখনও জনা বিশেক মানুষ নিখোঁজ রয়েছে বলে উদ্ধার পাওয়া রোহিঙ্গাদের বরাতে জানিয়েছেন ওসি।

 

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গাদের বহনকারী নৌকাডুবির ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ জনে, যাদের মধ্যে দশ জনই শিশু।

  আরো সংবাদ